ঢাকাশনিবার , ১৩ জানুয়ারি ২০২৪
  1. অপরাধ
  2. অর্থনৈতিক
  3. আইন আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইসলাম
  6. খুলনা
  7. খেলাধুলা
  8. গণমাধ্যম
  9. চট্টগ্রাম
  10. জাতীয়
  11. জেলা/উপজেলা
  12. জোকস
  13. ঢাকা
  14. তথ্য প্রযুক্তি
  15. ধর্ম
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ভয়ে রাত পার করছেন রোহিঙ্গা ক্যম্পের বসবাসকারী, রয়েছে আতঙ্কে!

স্টাফ রিপোর্টার
জানুয়ারি ১৩, ২০২৪ ১:৩৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

কক্সবাজার প্রতিনিধি: কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গাদের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই উগ্রপন্থী সংগঠন আরকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি (আরসা) ও রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন (আরএসও) এর মধ্যে আধিপত্য বিস্তারের দ্বন্দ্বই থামছে না। গত দুই সপ্তাহে ধরে চলছে আগুন লাগানো হিড়িকবড় ধরনের তিনটি ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। সর্বশেষ গত বুধবার দিবাগত রাতে কুতুপালং ৫ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বি ব্লকে অগ্নিকাণ্ডে ২০টিরও বেশি ঘর পুড়ে যায়। একের পর এক আগুনের ঘটনায় রোহিঙ্গাদের মধ্যে আতঙ্ক-উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে।

গত ৩১ ডিসেম্বর (শনিবার) দিবাগত রাতে বালুখালী ১১ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ই ব্লকে অগ্নিকাণ্ডে ভস্মীভূত হয় ৭৬টি বসতঘর। এর সাত দিন পর গত রোববার (৭ জানুয়ারি) রাতে একই ক্যাম্পের সি ব্লকে আগুন লাগে। প্রায় তিন ঘণ্টার ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে যায় চারটি ব্লকের ৮৪২টি ঘর ও লার্নিং সেন্টার, মসজিদসহ ১২২টি বিভিন্ন স্থাপনা।
উখিয়া ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাগুলো রাত্রিকালীন, আমরা খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাৎক্ষণিক সাড়া দেই। সবচেয়ে ভয়াবহ ছিল ৫ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের চারটি ব্লকে ছড়িয়ে পড়া আগুন, আমাদের ১১টি ইউনিট সেখানে কাজ করেছে।
সরজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কক্সবাজারের উখিয়া–টেকনাফ মিলিয়ে সর্বমোট ৩৩টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বর্তমানে ১০ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা বাস করছে। আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিবেদন মতে, ২০২১ থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কমপক্ষে ১৩৫টি ছোট-বড় অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে। এসব অগ্নিকাণ্ডে প্রায় আট হাজার রোহিঙ্গা গৃহহীন হয়েছে।
এর মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ ছিল ২০২১ সালের ২২ মার্চ তিনটি ক্যাম্পে এক সঙ্গে অগ্নিকাণ্ড। সে সময় ১১ জনের মৃত্যু ও পাঁচ শতাধিক রোহিঙ্গা আহত হন। পুড়ে গিয়েছিল ১০ হাজারের বেশি ঘর। এ ছাড়া গত বছরের মার্চে ১১ নম্বর ক্যাম্পে আগুন দিয়েছিল দুর্বৃত্তরা। ওই অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে যায় ২২০০টি ঘর, ক্ষতিগ্রস্ত হয় ১৫ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা।
জামতলি ক্যম্পের বাসিন্দা নাজির হোছাইন (৮০) বলেন রাতে মসজিদের মাইকে এলান করে দেয় তার বলে রাতে কোন অঘটন ঘটতে পারে তাই কাপড় চোপড় গাট্টি রেখে দিতে। সারারাত আগুনের ভয়ে কাটাতে হয়।
রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ৫ নাম্বার বি ব্লকের বাসিন্দা আবুল হাশেম বলেন, ‘আগুনের ভয়ে রাতের ঘুম হারাম হয়ে গেছে। কখন কি হয় জানি না, পরিবার নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি।’
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক রোহিঙ্গা মানবাধিকার কর্মী বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের দুই উগ্রপন্থী সংগঠন আরকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি (আরসা) ও রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন (আরএসও) এর মধ্যে আধিপত্য বিস্তারের দ্বন্দ্বই থামছে না।’
‘ক্যাম্পে গোলাগুলি, হত্যা, অগ্নিকাণ্ডসহ সবকিছুর নেপথ্যে তারাই। একপক্ষ আরেক পক্ষ দমাতে সমর্থকসহ সদস্যদের ঘরে আগুন লাগিয়ে দিয়ে নাশকতা তৈরি করছে। এসব অগ্নিকাণ্ডের কারণ স্পষ্ট না হলেও প্রতিটিতে দুর্ঘটনার নেপথ্যে নাশকতার তথ্য পাওয়া যায়।’
অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শামসুদ্দৌজা নয়ন বলেন, ‘অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য সহায়তা ও পুনর্বাসন কার্যক্রম ক্যাম্পে কাজ করা বিভিন্ন সংস্থার সহযোগিতায় অব্যাহত আছে।

ক্যাম্পের আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত ১৪ এপিবিএনের অধিনায়ক মোহাম্মদ ইকবাল (অতিরিক্ত ডিআইজি) বলেন, ‘ক্যাম্পের সাধারণ রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তার স্বার্থে আমরা সব সময় তৎপর। যেকোনো পরিস্থিতিতে আমাদের সদস্যরা কাজ করে।’ অগ্নিকাণ্ডসহ নাশকতায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনতে সাঁড়াশি অভিযান চলছে। সঠিক প্রমান সাপেক্ষ আইনি পদক্ষেপ নেয়া হবে।
এমএসএ/ইবিসি/ কক্সবাজার

প্রিয় পাঠক, আপনিও একুশে বার্তা অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, এখন আমি কী করব, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন ekusheybartaonline@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

x